সভ্য ইংল্যান্ডে স্ত্রী বিক্রির অসভ্য প্রথা

43

অন্য দুনিয়া ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

ইংল্যান্ড বর্তমান বিশ্বের পাঁচ পরাশক্তির অন্যতম। বিশ্বের অন্যতম সভ্য জাতি তারা। যে ইংরেজরা জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চায় ব্যাপক উন্নতি সাধন করে এক সময় প্রায় গোটা বিশ্ব শাসন করেছে, তাদেরই দেশে এক সময় চালু ছিল স্ত্রী বিক্রির মতো অসভ্য প্রথা। অদ্ভুত শোনালেও উনবিংশ শতাব্দীর মধ্য ভাগেও ইংল্যান্ডে এই প্রথা চালু ছিল। ইউরোপের ইতিহাস অন্তত তাই বলে।

‘অক্সফোর্ড ডিকশনারি অব ন্যাশনাল বায়োগ্রাফি’ থেকে জানা যায়, ১৭৮০ থেকে ১৮৫০ সালের মধ্যে ইংল্যান্ডে প্রকাশিত বিভিন্ন সংবাদপত্রে স্ত্রী বিক্রির অনেক ঘটনার উল্লেখ রয়েছে। তৎকালীন নথিপত্র থেকে জানা যায়, স্বামীর কাছে স্ত্রীকে বিয়ের বাধ্যবাধকতা থেকে মুক্তি দিতে তালাকের চেয়ে অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করে দেওয়াটা সহজ ছিল। আর স্ত্রী বিক্রির ঘটনা সর্ব প্রথম ঘটে ১৭৩৩ সালে। রেকর্ডকৃত নজিরটি এসেছে বিলস্টন নামের একটি ছোট্ট গ্রাম থেকে, যেটি ওলভারহ্যাম্পটন  ও বার্মিংহামের খুব কাছেই। স্যামুয়েল হোয়াইটহাউজ নামের এক ব্যক্তি তার স্ত্রী ম্যারি হোয়াইটহাউজকে থমাস গ্রিফিথ নামের এক ব্যক্তির কাছে এক পাউন্ডে বিক্রি করেন।

১৭৯০ এর দশকের মধ্যে প্রথাটি এতটাই ব্যাপক আকার ধারণ করেছিল যে, এটি সেই সময়ের একটি আলোচিত বিষয় ছিল।স্বামীরা বিক্রির জন্য স্ত্রীর গলায়, বাহু বা কোমরে বেঁধে নিয়ে আসত। এরপর বাজারে নিয়ে প্রকাশ্যেই তাকে নিলামে উঠাতেন এবং সর্বোচ্চ দরদাতার হাতে স্ত্রীকে তুলে দিতেন।

স্বামীরা বিক্রির জন্য স্ত্রীর গলায়, বাহু বা কোমরে বেঁধে নিয়ে আসত

স্ত্রী বিক্রির এ আজব প্রথা ২০ শতকের গোড়ার দিক পর্যন্ত ইংল্যান্ডে চালু ছিল। আইনবিদ ও ইতিহাসবিদ জেমস ব্রাইসের মতে, ১৯০১ সালেও স্ত্রী বিক্রির ঘটনা নিয়ে লেখালেখি হয়েছে। ইংল্যান্ডে স্ত্রী বিক্রির সর্বশেষ প্রতিবেদনের একটি হিসাবে, ১৯১৩ রহসালে লিডস (পশ্চিম ইয়র্কশায়ারের শহর) পুলিশ আদালতে একজন নারী দাবি করেন, তার স্বামী তাকে এক সহকর্মীর কাছে ১ ডলারে বিক্রি করেছেন।

You might also like