কাজিপুর চরুগরিশ ইউ,পি চেয়ায়ম্যানকে ৭ দিনের কারাদন্ড

50

স্টাফ রিপোর্টার সিরাজগঞ্জঃ সোনারদেশ২৪:

সিরাজগঞ্জ জেলা, কাজিপুর উপজেলার চরগিরিশ ইউ,পি চেয়ারম্যান মোঃ জহুরুল হককে ট্রাইব্যুনালের আদেশমতে অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল না করায়, গত রবিবার(২০ সেপ্টেম্বর) ক্রিমিনাল প্রসিউডর কোডের ৪৮৫ ধারায় দোষী সাব্যস্থ করে ৭ দিনের বিনাশ্রম করাদন্ডে দন্ডিত করেন  নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল নং২ এর বিচারক (জেলা দায়রা জজ) মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন।

আদালত সূত্রে জানা যায় গত বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) কাজিপুর চরগিরিশ ইউ,পি চেয়ারম্যান মোঃ জহুরুল হককে অত্র টাইব্যুনালে হাজির হয়ে কারণ দর্শানের জন্য দিন ধার্য থাকলেও তিনি নির্ধারিত টাইবুনালে হাজির হন নাই বা কারন দর্শান নাই।

আদালত সূত্রে আরো জানা যায় যে মামলা নং-২৯১/২০১৮ এর অভিযোগ বিষয়ে আদালত তাকে একটি অনুসন্ধান প্রতিবেদন ৭ কার্যদিবসের মধ্যে জমা দেয়ার জন্য গত ২০১৮ সালের ১৬ অক্টোবর চিঠি মার্ফত নির্দেশ দেন। কিন্তু উক্ত চেয়ারম্যান দীর্ঘ ৭মাস অতিক্রান্ত হলেও কোন অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল না করায় তাকে ২০১৯ সালের জুন মাসের ২৫ তারিখে ট্রাইবুনালে হাজির হয়ে কারন দর্শানের নির্দেশ দেয়া হয়। নির্ধারিত সেই তরিখেও তিনি ট্রাইবুনালে হাজির হয়ে কারন দর্শাননি বা প্রতিবেদন দাখিল করেননি।

পরবর্তীতে এরকম আরো ৩টি তারিখ অতিবাহত হলেও উক্ত ইউ,পি চেয়ারম্যান হাজির হননি বা কারন দর্শাননি।

এই কারনে উল্লেখিত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গত ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসের ৩১ তারিখে একটি মিস মামলা দাখিল করা হয় এবং কেন তার বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল প্রসিউডর কোডের ৪৮৫ ধারায় অপরাধ আমলে নিয়ে তাকে সাজা প্রদান করা হবে না সে মর্মেও গত একই সালের নভেম্বর মাসের ২৮ তারিখে অত্র ট্যাইব্যুনালে হাজির হয়ে কারন দর্শানোর জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। কিন্তু তিনি উক্ত তারিখেও ট্রাইবুনালের নির্দেশ মোতাবেক হাজির হননি বা কারন দর্শাননি।

পরবর্তীতেও কয়েকটি তারিখ অতিবাহিত হলেও সংশ্লিষ্ট চয়ারম্যান কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করায় উক্ত চেয়ারম্যান বরাবর ডাকযোগে প্রেরিত ট্রাইবুনালের কপি বিলি হয়েছে কিনা সে মর্মে পোষ্ট মাষ্টারকে প্রতিবেদন দেবার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। পোষ্ট মাষ্টার চলতি বছরের আগষ্ট মাসের ৫ তারিখে ইসি/জেনারেল/কোর্টকেস/পার্ট-১/২০-২১নং স্মারকে জানান যে উক্ত ইউ,পি চেয়ারম্যন বরাবর ডাক যোগে প্রেরিত এ ট্রাইব্যুনালের আদেশ বিলি হয়েছে।

উল্লেখিত কারনে তাকে সাজা প্রদান করা হয়। গ্রেফতার বা আত্মসমর্পনের তারিখ হতে সাজার মেয়াদ কার্যকর হবে বলে আদালত সুত্রে জানা যায়।

You might also like