ভারতের সঙ্গে বিরোধ, যুক্তরাষ্ট্রকে ‘নাক না গলাতে’ চীনের হুঁশিয়ারি

21

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

লাদাখে সীমান্ত নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে ভারত ও চীন। সেই দ্বন্দ্বে আবারো হাওয়া লেগেছে, বেড়েছে উত্তেজনা। আধিপত্য প্রতিষ্ঠায় অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে দেশ দুটি। এই ঘটনার পর নিরাপত্তার কথা বলে ১১৮টি চীনা অ্যাপও নিষিদ্ধ করেছে ভারত।

তবে ভারতের এই পদক্ষেপ খুব ভালোভাবে নেয়নি চীন। তারা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার প্রতিবাদ জানিয়েছে। একই সঙ্গে ভারত-চীন দ্বন্দ্বে নাক না গলাতে যুক্তরাষ্ট্রকে আবারো সতর্ক করেছে চীনের সরকার। এদিকে আলোচনার মাধ্যমে সীমান্ত সংঘাতের অবসানের আহ্বান জানিয়েছি নয়াদিল্লি।

এই উত্তেজনার মধ্যে লাদাখ সীমান্তে বিরোধের জেরে ট্যাঙ্ক, সাঁজোয়া যানসহ অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে চীন ও ভারত। এর মধ্যেই লাদাখের পূর্বাঞ্চলীয় চুসুল সেক্টর পরিদর্শনে যান ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল এম এম নারাভানে। এসময় আলোচনার মাধ্যমে সীমানা বিরোধ মিটমাটের অঙ্গীকার করেন তিনি।

সীমান্তে চীনের যে কোনো বেআইনি পদক্ষেপ কঠোরভাবে প্রতিরোধের ঘোষণা দিয়েছে ভারতীয় বাহিনী। এদিকে আলোচনার মাধ্যমে শান্তি স্থিতিশীলতা রক্ষায় বেইজিংয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ভারত।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তভা বলেন, শান্তিপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে সব সমস্যা সমাধানে আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ। তাই চীনের কাছে আমাদের জোরালো আহ্বান, দ্বিপক্ষীয় চুক্তি মেনে সীমান্ত এলাকা থেকে সব ধরনের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড বন্ধ করুন।

এদিকে ভারতের স্বার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে ১১৮টি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে চীন দাবি করেছে, এর মধ্যমে জাতীয় নিরাপত্তার ধারণাকে অমর্যাদা করেছে ভারত। একই সঙ্গে চীনা উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণের মাধ্যমে ভারত বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার আইন ভঙ্গ করেছে বলেও অভিযোগ করা হয়।

চীন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনয়িং বলেন, চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধের কারণে সবার আগে ভারতীয়দের অধিকার ও স্বার্থ ক্ষুণ্ণ হয়েছে। একই সঙ্গে চীনা উদ্যোক্তাদের অধিকারও খর্ব করা হয়েছে। ভারতের এই সিদ্ধান্তের কারণে কোন পক্ষেরই কোনো লাভ হবে না বরং আরো ক্ষতি হবে।

এদিন ভারত-চীন দ্বন্দ্বের বিষয়ে নাক না গলাতে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করেছে চীন। দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে চলমান সংকট সমাধান সমাধানে ভারত ও চীনই যথেষ্ট বলেও উল্লেখ করে শি জিনপিং সরকার।

প্রসঙ্গত, গত জুনে গালওয়ানে চীনা সেনাদের হামলায় ভারতের ২০ সেনা নিহতের পর থেকে ভারত চীন দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছায়। সবশেষ চলতি সপ্তাহে লাদাখে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই দেশের সেনাদের মধ্যে হাতাহাতি ও সিকিম সীমান্তে এক ভারতীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তা নিহতের পর উত্তেজনার পারদ আরো তুঙ্গে ওঠে।

You might also like