বয়স্কদের জন্য স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস

37

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের সংজ্ঞাটি বয়স বাড়ার সাথে সাথে পরিবর্তিত হয়। শরীরের প্রয়োজনীয় পুষ্টি এবং সঠিক ওজন বজায় থাকলে বয়সকালে সক্রিয় এবং স্বাবলম্বী থাকা যায়। তাই বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের খাদ্য গ্রহণের অভ্যাসও একটু বদলাতে হয়। কারণ আমাদের মেটাবলিসম ধীর গতিতে হয়। এবং ক্যালোরির প্রয়োজনীয়তাও কমে আসে।

আবার অন্যদিকে পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা বেড়ে যায়। তাই খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন জরুরি হয়ে পড়ে। বয়স বাড়ার প্রভাব পড়ে শারীরিক কার্যাবলীর উপরে। এবং তা খাবারের অভ্যাস ও খিদের উপরেও প্রভাব ফেলে।

একটু দেখে নেয়া যাক বয়সের সাথে সাথে কী রকম শারীরিক পরিবর্তন আসে-

১. মেটাবলিসম বা হজমের ক্ষমতা কমে যায়। যারা ব্যায়াম করেন না বা কম পরিশ্রম করেন তাদের তখন ক্যালোরি ক্ষয় করার ক্ষমতা কমে যায়। তাই পরিমানমত খেয়ে শরীরের সঠিক ওজন বজায় রাখা জরুরি।

২. বয়সের সাথে সাথে শরীরের অনাক্রম্যতা কমে আসে। তার ফলে নানারকম শারীরিক সমস্যা যেমন ডায়াবেটিস, ছানি, পেশির ক্ষয়, হৃদরোগ, অস্টিওপরোসিস, ডিমেনশিয়া, অ্যালজাইমার্স ইত্যাদি হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে এগুলি সাময়িকভাবে রোধ করা গেলেও সম্পূর্ণরূপে প্রতিরোধ করা যায় না।

৩. বয়স হলে অনেকেরই দাঁতের সমস্যা হয় এবং তাদের হালকা ও নরম খাবার খাওয়া উচিত। যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন তাদের ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত যেমন দুধ, শস্যদানা, মুসলি, দই ইত্যাদি। এতে তারা প্রয়োজনীয় পুষ্টিও পাবেন আবার পেটের সমস্যাও থাকবে না।

৪. অনেকেই আবার বয়সকালে অবসাদে ভোগেন তাই খাওয়া কমিয়ে দেন আবার অনেকে বেশি খান। দুটোর কোনোটাই ভালো নয়।

৫. যারা নানারকম ওষুধ সেবন করেন তাদের খিদে কমে যায় এবং তারা কম খাবার খান। তাই সেইসব বয়স্ক মানুষদের খাবারের প্রতি নিয়মিত নজর রাখা উচিত।

তাই সবসময়ই উচিত একজন ভালো ডায়েটেশিয়ানের পরামর্শ নেওয়া। বয়স বাড়বেই কিন্তু সেটি হওয়া উচিত স্বাস্থ্যোজ্জ্বল এবং আনন্দময়।

You might also like