পোশাককর্মীকে গণধর্ষণ: দুই জনের যাবজ্জীবন

21

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

সাড়ে তিন বছর আগে রাজধানীর আদাবরে এক গার্মেন্ট কর্মী গণধর্ষণের মামলায় দুই জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

রোববার (১১ অক্টোবর) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক সামছুন্নাহার এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- সজীব ঢালী এবং আবু হাসান ওরফে সাঈদ। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাস কারাগারে থাকতে হবে। রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি আদালতে হাজির ছিলেন। পরে সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়।

অপরদিকে পলাতক দুই আসামি আকাশ ওরফে মোসলেম এবং আনোয়ার বয়তীর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত তাদের খালাস দিয়েছেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী মহসিন রেজা এ তথ্য জানান।

এদিকে রায়ে আইনজীবী মহসিন রেজা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, কোনো সাক্ষী আসামিদের নাম বলেনি বা শনাক্ত করেনি। শুধুমাত্র স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির ভিত্তিতে তাদের সাজা দেওয়া হয়েছে। এ রায়ে আমরা সংক্ষুব্ধ। আমরা উচ্চ আদালতে যাবো। আশা করছি উচ্চ আদালত তাদের খালাস দেবেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আলী আসগর স্বপন বলেন, বিচারক দুইজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং দুই জনকে খালাস দিয়েছেন। চারজনেরই যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হলে আমরা খুশি হতাম।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ২০ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৮টার দিকে গার্মেন্টস কর্মী ওই তরুণী কাজ শেষে বাসায় ফিরছিলেন। আদাবর থানাধীন শ্যামলী হাউজিং প্রকল্পের পানির পাম্পের সামনে পৌঁছালে সজিব, আবু হাসানসহ অজ্ঞাতনামা দুইজন ছেলে ভিকটিমের গতিরোধ করে টেনে হিঁচড়ে শান্তা ওয়েস্টার হাউজিং ও আজিম গার্মেন্টসের ফাঁকা মাঠে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় পরদিন ভিকটিমের মা আদাবর থানায় মামলাটি দায়ের করেন। পুলিশ পরিদর্শক ইসমত আরা এমি মামলাটি তদন্ত করে চারজনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। পরবর্তী সময়ে আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করে বিচার শুরু হয়। মামলাটির বিচারকাজ চলাকালে আদালত ৯ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন।

You might also like