আজ দেশে ‘উপকূল দিবস’

22

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়নসহ উপকূল সুরক্ষার লক্ষ্য সামনে রেখে দেশে এ বছরও ‘উপকূল দিবস’ পালিত হচ্ছে।

১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বরের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের এই দিনে দিবসটি পালন করা হয়। উপকূলবাসী দিবসের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দাবি করেছে।

এ বছর কোস্টাল জার্নালিজম নেটওয়ার্ক-সিজেনেট ও চেঞ্জ ইনিশিয়েটিভ-এর যৌথ উদ্যোগে উপকূলের ১৬ জেলার ৪১ উপজেলার ৫৫ স্থানে একযোগে ‘উপকূল দিবস’ পালিত হচ্ছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে মানববন্ধন, আলোচনাসভা, ঘূর্ণিঝড়ে প্রয়াতদের স্মরণে মোমবাতি প্রজ্জলন এবং স্মারকলিপি পেশ।

ঢাকায় দুপুর আড়াইটায় ‘ভয়েস অব কোস্ট’ শিরোনামে ওয়েবিনারের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান এমপি। অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতি বেলা’র প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। বিশেষ অতিথি থাকবেন পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক মো. জিয়াউল হক, অক্সফাম বাংলাদেশের এনামুল মজিদ খান সিদ্দিকী।

সংবাদ মাধ্যমে উপকূলের প্রান্তিক জনপদের গুরুত্ব বাড়িয়ে তুলতে ২০১৬ প্রথম উপকূল দিবসের চিন্তা করেন উপকূল-সন্ধানী সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম মন্টু।

এখন ‘উপকূল দিবস’ বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়কারীর দায়িত্বে থাকা রফিকুল ইসলাম মন্টু বলেন, উপকূলের দিকে গণমাধ্যম ও নীতিনির্ধারকদের নজর বাড়িয়ে উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়ন ঘটানোই এই দিবসের মূল লক্ষ্য।

১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর ১৮৫ কিলোমিটারে বেগে ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানে। জলোচ্ছ্বাসে উপকূলীয় অঞ্চল ও দ্বীপ প্লাবিত হয়। এতে ১০ লাখের বেশি লোকের প্রাণহানি ঘটে বলে বিভিন্ন জরিপে উঠে আসে।

You might also like