অর্থপাচারের উদ্দেশ‌্যে ‘লিলাবালি’ গড়ে তোলেন পাপুল

25

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

অবৈধ  উপায়ে অর্জিত অর্থ পাচারের উদ্দেশ‌্যে শ্যালিকা জেসমিন প্রধানকে মালিক দেখিয়ে ‘লিলাবালি’ নামে একটি কাগুজে প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কাজী সহিদ ইসলাম পাপুল।  ওই প্রতিষ্ঠানের আড়ালে জেসমিনের পাঁচটি অ‌্যাকাউন্টের মাধ্যমে ২০১২ সাল থেকে ২০২০ পর্যন্ত  ১৪৮ কোটি টাকা পাচার করেন তিনি। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধানে এমন তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে দুদকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘‘জেসমিনের বয়স ২৩ বছর।  তাকে মালিক দেখিয়ে সেলিনা ইসলাম এমপি ও  শহিদ ইসলাম পাপুল নিজেদের অবৈধভাবে অর্জিত অর্থের বৈধতা দেওয়ার জন্য ‘লিলাবালি’ নামে কাগুজে প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। বিভিন্ন ব্যাংকে জেসমিনের নামে প্রায় ৪৪টি অ‌্যাকাউন্ট পাওয়া গেছে। যেখানে শুধু এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকেই রয়েছে ৩৪টি এফডিআর হিসাব।  পাপুল  এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের পরিচালক ছিলেন। তাই এই সুবিধা নিতে তার কোনো বেগ পেতে হয়নি।’’

দুদকের অনুসন্ধান প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, জেসমিন তার এফডিআর হিসাবের ২ কোটি ৩১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৭ টাকার কোনো উৎস দেখাতে পারেননি। যে কারণে অবৈধ সম্পদের অভিযোগে আরও মামলার মুখোমুখি হতে হচ্ছে তাকে।

সূত্র জানায়, অবৈধ উপায়ে অর্জিত জেসমিন প্রধানের নিজ নামে ২০টি এফডিআরে এক কোটি টাকা, সেলিনা ইসলামের নামে ২৯৫টি এফডিআরে ২০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা,  শহিদ ইসলাম পাপুলের নামে ২৩টি এফডিআরে ২ কোটি ১৮ লাখ টাকার সন্ধান পেয়েছে দুদক।  আর পাপুলের মেয়ে ওয়াফা ইসলামের ৪১টি এফডিআরের ২ কোটি ২৯ লাখ টাকাসহ মোট ২৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা জেসমিন প্রধানের এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের হিসাবে লগ্নি করে ২৫ কোটি ২৩ লাখ টাকার ওভার ড্রাফটের প্রমাণ পাওয়া গেছে।  সব মিলিয়ে ১৪৮ কোটি টাকা পাচার করেছেন পাপুল।

এসব ঘটনায় পাপুল, তার স্ত্রী সেলিনা ইসলাম, শ্যালিকা জেসমিন ও মেয়ে ওয়াফা ইসলামের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলার অনুমোদন দিয়েছে দুদক।

You might also like