পৃথিবীর কক্ষপথে নতুন চাঁদের সন্ধান!

12

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

সৌরজগতের অধিকাংশ গ্রহের একাধিক চাঁদ রয়েছে। কিন্তু পৃথিবীর চাঁদ মাত্র একটি। তবে পৃথিবীর কক্ষপথে ছোট্ট আরেকটি চাঁদ ঢুকে পড়ার কথা জানিয়েছেন মহাকাশবিজ্ঞানীরা। তবে তা কিছু সময়ের জন্য। এটি আসলে একটি গ্রহাণু, আর ছোট্ট এই চাঁদের নাম ২০২০ সিডি৩ (2020CD3) বলে জানায় বিজ্ঞানীরা।

তবে একটি চাঁদের মতো পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করতে আসেনি। এর ব্যাস ১.৯ মিটার থেকে ৩.৫ মিটার। অর্থাৎ এই ছোট্ট চাঁদের আকৃতি একটি গরুর চেয়ে সামান্য বড়, আর একটি জলহস্তীর চেয়ে সামান্য ছোট। এমন খবর প্রকাশ করেছে নিউজ এইট্টিন।

আন্তর্জাতিক অ্যাস্ট্রোনমিকাল ইউনিয়নের মাইনর প্ল্যানেট সেন্টার থেকে টেলিস্কোপের মাধ্যমে প্রথম এই ক্ষুদ্র চাঁদটি ধরা পড়ে। সৌরজগতের সমস্ত গ্রহ, গ্রহাণু পর্যবেক্ষণ, গবেষণা ও নামকরণের দায়িত্ব এই জ্যোতির্বিজ্ঞান বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থাটির উপর।

সম্প্রতি সংস্থাটির এক মহাকাশবিজ্ঞানী ক্যাসপার উইজখোর্স ২০২০সিডি৩ নিয়ে টুইট করেন। ওই টুইটে তিনি জানান, ক্যাটালিনা স্কাই সার্ভে দলের সদস্য ক্যাসপার এবং তার অন্যান্য সহকর্মীরা প্রথম ১৫ ফেব্রুয়ারি এই গ্রহাণুটির খোঁজ পান।

এ বিষয়ে ক্যাসপার জানান, এ ধরনের গ্রহাণু কয়েক লক্ষ রয়েছে। তবে পৃথিবীর কক্ষপথে ঢুকে পড়ার ঘটনা মহাকাশের ইতিহাসে দ্বিতীয়বার ঘটলো। এর আগে ২০০৬ আরএইচ১২০ নামের এক গ্রহাণু অল্প দিনের জন্য পৃথিবীর কক্ষপথে ঢুকে পড়েছিল। পৃথিবীকে প্রদক্ষিণও করেছিল। সেটিও ক্যাটালিনা স্কাই সার্ভে’র সদস্যদেরই চোখেই প্রথম ধরা পড়ে।

এর কারণ হিসেবে বিজ্ঞানীরা জানান, পৃথিবী, চাঁদ এবং সূর্যের মাধ্যাকর্ষণের মিলিত শক্তিতে এমন ঘটনা ঘটতে পারে। ২০২০ সিডি৩ গত তিন বছর ধরে পৃথিবীর কক্ষপথে ঘুরছে বলেও জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের ধারণা। ২০২০ সালের অক্টোবর থেকে ২০২১ সালের মে মাসের মধ্যে এটি আবারো তার কক্ষপথ বদলাবে। আগামী বছরের শুরুতে গ্রহাণুটির পৃথিবীর আরো কাছে আসার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানান বিজ্ঞানীরা

এদিকে আন্তর্জাতিক মহাকাশ গবেষণা সংস্থার (নাসা) সেন্টার ফর নিয়ার আর্থ অবজেক্ট জানায়, এটি মহাজাগতিক কিছু নাও হতে পারে। বস্তুটি সম্ভবত ১৯৬০ সালের পুরনো কোনো বুস্টার রকেট হতে পারে।

You might also like