শিরোনাম:

নরসিংদীতে স্পিডবোটের মুখোমুখি সংঘর্ষে একজন নিহত

তাল গাছের শতাধিক বাবুই পাখির বাসা ভেঙে কারাগারে ৩ কৃষক

ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন মমতাজ

মঙ্গলবার ব্যাংকে লেনদেন ৩টা পর্যন্ত

তারাবি ও মসজিদে জামাত নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা

বাংলাদেশের সঙ্গে ‘অর্থবহ সহযোগিতা’ বাড়াবে নেপাল

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত : মার্চ ২৩, ২০২১

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

বাংলাদেশের সঙ্গে ‘অর্থবহ সহযোগিতা’ বাড়াবে নেপাল। দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধিসহ শক্তিশালী যোগাযোগ স্থাপন ও অর্থবহ সহযোগিতা বাড়ানো বিষয়ে আলাপ করেছেন সফররত নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারী এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (২২ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে সফররত নেপালের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সাক্ষাতে দুই দেশের মধ্যকার অর্থবহ যোগাযোগ বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন বিদ্যা দেবী।

পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বৈঠকের বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

বৈঠকে নেপালের রাষ্ট্রপতি দুই দেশের মধ্যে ‘অর্থবহ সহযোগিতা’ বাড়ানোর ওপর জোর দেন। একই সঙ্গে তিনি বিমসটেক সদস্য দেশগুলোর মধ্যেও যোগাযোগ বাড়ানোর কথা বলেন।

নেপালে সারের জরুরি প্রয়োজনের সময় সাড়া দেওয়ায় বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বিদ্যা দেবী।

এছাড়াও বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দর ও সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবহারের প্রস্তাব দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দেন তিনি।

দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ ও নেপাল দুই দেশই প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিরূপ প্রভাবের সম্মুখীন হয়। দুর্যোগ মোকাবেলায় নিজ নিজ সম্পদের সর্বাধিক ব্যবহার নিশ্চিত করার কথাও বলেন নেপালের রাষ্ট্রপতি।

দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য বাড়াতে অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি (পিটিএ) স্বাক্ষরের ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, পিটিএ চুক্তি উভয় দেশের জন্যই লাভজনক হবে।

বিবিআইএন (বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপাল) সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগ শক্তিশালী করার উপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এতে এ অঞ্চলের বাণিজ্য সম্প্রসারিত হবে।

বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালের যৌথ সহযোগিতায় নেপালের পানি সম্পদ ব্যবহার করে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প করার গুরুত্ব তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করে নেপালের রাষ্ট্রপতি বলেন, আপনি বিশ্বের দারুণ এক অনুপ্রেরণাদায়ী নেতা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে বলেন, আমি আপনার অনুরাগী।

সাক্ষাতকালে নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারীকে মুজিববর্ষ উপলক্ষে স্মারক মুদ্রা উপহার দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নেপালের প্রেসিডেন্ট নেপালি ভাষায় অনূদিত ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ‘কারাগারের রোজনামচা’ বই দুটি প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ঢাকায় আসায় নেপালের রাষ্ট্রপতিকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা।

স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র সরবরাহসহ নেপালের জনগণের সমর্থনের জন্যও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ শেখ হাসিনা।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া এবং পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন।

নেপালের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে ছিলেন তার মেয়ে উষা কিরণ ভান্ডারী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী প্রদীপ কুমার গোওয়ালি ও নেপাল একাডেমির চ্যান্সেলর গঙ্গা প্রায়াদ উপ্রেতি।

পূর্ববর্তী সংবাদ পরবর্তী সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ
  • সর্বাধিক পঠিত