শিরোনাম:

আজকের রাশি। ১২ মে

উৎসব ভাতা থেকে বঞ্চিত ৭০ ভাগ সাংবাদিক

কোভিডের চিকিৎসায় আইভারমেক্টিন ব্যবহারে সতর্ক করল হু

গাড়ির কাঁচ ভেঙে বাঁচার আকুতি জানালেও কেউ এগিয়ে আসেনি

রাশিয়ার স্কুলে বন্দুক হামলা, নিহত ১১

‘উনি আমাকে বিয়ে করবেন না’

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত : এপ্রিল ২৭, ২০২১
মোসারাত জাহান মুনিয়া।

শেয়ার করুন

রাজধানী ঢাকার গুলশানের ফ্ল্যাট থেকে মোসারাত জাহান মুনিয়ার (২১) ঝুলন্ত মরদেহ ঘটনায় করা মামলায় উঠে এসেছে নানা তথ্য। গুলশান থানায় মঙ্গলবার ভোরে মামলাটি করেন মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান।

মামলা করলেও থানা থেকে বেরিয়ে তিনি গণমাধ্যমের সাথে খোলাখুলি কথা বলেন নি। মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, নিহত মুনিয়া মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। দুই বছর আগে তার মামলার আসামি বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীর সঙ্গে পরিচয় হয়। আসামির সঙ্গে মুনিয়ার প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

মামলার এজাহারে বলা হয়, মুনিয়াকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে দুই বছর আগে রাজধানীর বনানীতে একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেন আসামি। সেখানে দুজনে থাকতেন। এক বছর পরই আসামির পরিবার বিষয়টি জানতে পারে। পরে আসামির মা মুনিয়াকে ডেকে ভয়ভীতি দেখান এবং মুনিয়াকে ঢাকা থেকে চলে যেতে বলেন বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

এজাহারে বলা হয়, আসামি এই ঘটনার পর মুনিয়াকে কুমিল্লা পাঠিয়ে দেয় ও পরে বিয়ের আশ্বাস দেয়। এরপর গত ১ মার্চ মুনিয়াকে সঙ্গে নিয়ে আবারও গুলশানের ওই বাসা ভাড়া নেন ও মাঝে মাঝেই ওই ফ্ল্যাটে যাতায়াত করতেন আসামি।

বাদী এজাহারে বলেন, সম্প্রতি ওই বাসার মালিকের বাসায় ইফতার করেন মুনিয়া। পরে ছবিটি ফেসবুকে শেয়ার করেন। এ নিয়ে দুজনের মাঝে মনোমলিন্য হয়। আসামিকে মুনিয়াকে কুমিল্লায় চলে যেতে বলেন। আসামির মা জানতে পারলে মুনিয়াকে মেরে ফেলবেন। ২৫ এপ্রিল মুনিয়া কান্না করে বাদীকে বলেন, আসামি তাকে বিয়ে করবে না, শুধু ভোগ করেছে। আসামি তাকে ধোঁকা দিয়েছে। যে কোনো সময় তার বড় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

এজাহারে আরও বলা হয়, নুসরাত তার আত্মীয়স্বজনদের নিয়ে ২৬ এপ্রিল কুমিল্লা থেকে ঢাকায় রওনা হন। গুলশানের বাসায় পৌঁছে দরজা ভেতর থেকে লাগানো দেখতে পান। পরে মিস্ত্রি এনে তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে শোয়ার ঘরে সিলিংয়ের সঙ্গে মুনিয়ার ঝুলন্ত লাশ দেখেন। পরে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।

পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত