ঘরে ঢুকে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, কাঠমিস্ত্রি আটক

32

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

জামালপুর সদর উপজেলার পরিচয় গোপন করে মোবাইলে অষ্টম শ্রেণির একছাত্রীর সাথে প্রেমের ফাঁদ পাতেন পার্শ্ববর্তী এলাকার কাঠমিস্ত্রি খলিলুর রহমান। ২ নভেম্বর, সোমবার জেলার সদর উপজেলার রশিদপুর ইউনিয়নের সেঙ্গুয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ৩ নভেম্বর, মঙ্গলবার দুপুরে খবর পেয়ে তাকে আটক করে র‍্যাব ১৪।

সোমবার রাতে ওই ছাত্রীর ঘরে ঢুকে ধর্ষণের সময় তাকে হাতেনাতে আটক করে প্রতিবেশীরা। পরে এলাকাবাসী খলিলকে সারারাত গাছে বেঁধে রাখেন তারা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, জামালপুর সদর উপজেলার রশিদপুর ইউনিয়নের সেঙ্গুয়া গ্রামে ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রী সাধারণ এক কৃষক পরিবারের মেয়ে। তাদের বাড়ি থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দূরে পাশের গ্রাম আলীনগরের কাঠমিস্ত্রি খলিলুর রহমান (৩০)। পরিচয় গোপন করে ওই ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের ফাঁদ পাতেন খলিল। খলিলুর রহমান বিবাহিত এবং এক সন্তানের জনক।

সোমবার রাতে ওই ছাত্রী বাড়িতে একা থাকার সুযোগে রাত ৯টার দিকে খলিলুর রহমান ওই ছাত্রীর বাড়িতে যান এবং জোরপূর্বক ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করেন। এ সময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে তার মামা ঘরে ঢুকে এ দৃশ্য দেখতে পান। খলিলুর রহমান পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে প্রতিবেশীরা তাকে আটক করে মারধরের পর সারারাত গাছে বেঁধে রাখেন।

খবর পেয়ে আজ মঙ্গলবার দুপুরে র‌্যাবের জামালপুর ক্যাম্পের একদল র‌্যাব সদস্য ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছে বাঁধা খলিলুর রহমানকে উদ্ধার ও আটক করে র‌্যাব ক্যাম্পে নিয়ে যায়।

পরে স্থানীয় নারায়ণপুর তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল লতিফ পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। মেডিক্যাল পরীক্ষাসহ পরবর্তী আইনি পদক্ষেপের জন্য ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রীকে সদর থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

র‌্যাব-১৪ জামালপুর ক্যাম্পের উপসহকারী পরিচালক মো. আনোয়ার হোসেন জানান, অষ্টম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রামবাসীর হাতে আটক খলিলুর রহমানকে সেখান থেকে উদ্ধার করে র‌্যাব ক্যাম্পে আনা হয়েছে। ধর্ষণের অভিযোগে জামালপুর সদর থানায় মামলা দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। মামলা দায়েরের পর আটক খলিলুর রহমানকে থানায় হস্তান্তর করা হবে।

You might also like