সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

রাজধানীর বুড়িগঙ্গা নদীতে ‘মর্নিং বার্ড’ নামের একটি লঞ্চ ডুবির ঘটনায় একের পর এক মরদেহ উদ্ধার করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত নারী-শিশুসহ ২৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছেন নৌবাহিনীর ডুবুরি দল, ফায়ার সার্ভিস ও কোস্ট গার্ড সদস্যরা। আজ ২৯ জুন, সোমবার বেলা ১টা পর্যন্ত পাওয়া সংবাদ অনুযায়ী এখনো উদ্ধার কাজ চলছে।

সকাল ১০টার দিকে শ্যামবাজার ফরাশগঞ্জ এলাকায় অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে লঞ্চটি। তবে স্থানীয়দের দাবি, লঞ্চটিতে অন্তত দুই শতাধিক যাত্রী ছিলেন।

জানা যায়, ‘মর্নিং বার্ড’ নামের লঞ্চটি অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে সকাল পৌনে ৮টার দিকে শতাধিক যাত্রী নিয়ে মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। পথে সকাল ১০টার দিকে ফরাশগঞ্জ এলাকায় ‘ময়ূর-২’ নামের লঞ্চের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে ডুবে যায় সেটি।

কেরানীগঞ্জের একটি ডকইয়ার্ড থেকে মেরামত শেষে ‘ময়ূর-২’ নদীতে নামানোর সময় দুর্ঘটনাটি ঘটে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। লঞ্চটি থেকে কয়েকজন যাত্রী সাঁতরে তীরে উঠলেও বহু মানুষ এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।

তাদের সন্ধানে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট, নৌবাহিনীর ডুবুরি দলের সদস্যদের সাথে স্থানীয় লোকজনও উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বলেন, এখন পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা যে ২৩ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে, তাদের মধ্যে ছয়জন নারী, ১৪ জন পুরুষ এবং তিনজন শিশু রয়েছেন।

উদ্ধর হওয়াদের মধ্যে এখন পর্যন্ত দিদার হোসেন (৪০) একজনের পরিচয় জানা গেছে।