আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

নভেল করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতের হার কমছে। এ সময়ের মধ্যে তিন হাজারের কম মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে ওয়ার্ল্ডোমিটার সূত্রে জানা গেছে। একই সময়ে সারা পৃথিবীতে প্রায় লাখখানেক মানুষ নতুন করে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (আজ ২৫ মে, সোমবার সকাল ১০টা) বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫৫ লাখ ২৬৮ জন। আগেরদিন একই সময় পর্যন্ত ৫৪ লাখ ৩ হাজার ৯৭৫ জন আক্রান্ত ছিলেন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে এখন ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৭১৯ জন। গতকাল পর্যন্ত এ সংখ্যা ছিল ৩ লাখ ৪৩ হাজার ৯৭৫ জনে।

এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ২৩ লাখ ২ হাজার ২৮ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছেন ২৮ লাখ ৫১ হাজার ৫২১ জন, যাদের মধ্যে ৫৩ হাজার ২২৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

গত ২৪ ঘণ্টায় যুক্তরাষ্ট্রেই সর্বোচ্চসংখ্যক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ১৯ হাজারের বেশি মানুষ। সবমিলিয়ে আক্রান্ত ও মৃতের হিসেবে শীর্ষে থাকা দেশটিতে মোট ১৬ লাখ ৮৬ হাজার ৪৩৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন ৯৯ হাজার ৩০০ জন।

বিপরীতে সুস্থ হয়েছেন ৪ লাখ ৫১ হাজার ৭০২ জন। এখনো চিকিৎসাধীন ১১ লাখ ৩৫ হাজার ৪৩৪ জন, যাদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় আছেন ১৭ হাজার ১৩৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু দেখেছে করোনার নতুন কেন্দ্র হয়ে ওঠা ব্রাজিল। দেশটিতে এই সময়ে প্রায় ৭ শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে ১৬ হাজারের বেশি মানুষ সেখানে আক্রান্ত হয়েছেন। সবমিলিয়ে লাতিন আমেরিকার এই দেশটিতে মোট ৩ লাখ ৬৫ হাজার ২১৩ জন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২২ হাজার ৭৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৪৯ হাজার ৯১১ জন করোনাআক্রান্ত। এখনো চিকিৎসাধীন ১ লাখ ৯২ হাজার ৫৫৬ জন, গুরুতর অবস্থায় ৮ হাজার ৩১৮ জন।

আক্রান্তের হিসেবে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় সাড়ে আট হাজার মানুষ। একই সময়ে দেড়শ’ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। সেখানে এখন রাশিয়ায় মোট আক্রান্ত ৩ লাখ ৪৪ হাজার ৪৮১ জন। এদের মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন ৩ হাজার ৫৪১ জন।

বিপরীতে সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ১৩ হাজার ২৯৯ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ২ লাখ ২৭ হাজার ৬৪১ জন, যাদের ২ হাজার ৩০০ জনের অবস্থা গুরুতর।

মৃতের হিসেবে ও আক্রান্তের হিসেবে চতুর্থ স্থানে রয়েছে স্পেন। সেখানে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৮২ হাজার ৮৫২ জন ও মৃত ২৮ হাজার ৭৫২ জন। এছাড়া দেশটিতে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৯৫৮ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন ও চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৫৭ হাজার ১৪২ জন। এখনো ৮৫৪ জনের অবস্থা গুরুতর।

মৃতের হিসেবে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা যুক্তরাজ্য আক্রান্তের হিসেবে আছে পঞ্চম স্থানে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে আরো শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। সেখানে মোট আক্রান্ত বেড়ে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫৫৯ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে মৃতের সংখ্যা ৩৬ হাজার ৭৯৩ জন ও গুরুতর অবস্থায় আছেন আরো ১ হাজার ৫৫৯ জন।

আক্রান্তের হিসেবে ষষ্ঠ স্থানে থাকা ইতালি মৃতের হিসেবে আছে তৃতীয় অবস্থানে। সেখানে মোট ২ লাখ ২৯ হাজার ৮৫৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ৩২ হাজার ৭৮৫ জন ইতোমধ্যে মারা গেছেন। দেশটির ১ লাখ ৪০ হাজার ৪৭৯ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এখনো সেখানে চিকিৎসাধীন ৫৬ হাজার ৫৯৪ জন, এদের ৫৫৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মৃতের হিসেবে চতুর্থ অবস্থানে থাকা ফ্রান্স আক্রান্তের হিসেবে আছে সপ্তম স্থানে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ১ লাখ ৮২ হাজার ৫৮৪ জন। এদের মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন ২৮ হাজার ৩৬৭ জন। বিপরীতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬৪ হাজার ৬১৭ জন। বর্তমানে যে ৮৯ হাজার ৬০০ জন চিকিৎসাধীন আছেন, তাদের মধ্যে গুরুতর অবস্থা ৮৮৯ জনের।

এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে বেলজিয়ামে ৯ হাজার ২৮০ জন, জার্মানিতে ৮ হাজার ৩৭১ জন, ইরানে ৭ হাজার ৪১৭ জন, মেক্সিকোতে ৭ হাজার ৩৯৪ জন, কানাডায় ৬ হাজার ৪২৪ জন, নেদারল্যান্ডসে ৫ হাজার ৮২২ জন, চীনে ৪ হাজার ৬৩৪ জন, তুরস্কে ৪ হাজার ৩৪০ জন, ভারতে ৪ হাজার ২৪ জন, সুইডেনে ৩ হাজার ৯৯৮ জন পেরুতে ৩ হাজার ৪৫৬ জন, ইকুয়েডরে ৩ হাজার ১০৮ জন, সুইজারল্যান্ডে ১ হাজার ৯০৬ জন, আয়ারল্যান্ডে ১ হাজার ৬০৮ জন, ইন্দোনেশিয়ায় ১ হাজার ৩৭২ জন, পর্তুগালে ১ হাজার ৩১৬ জন, রোমানিয়ায় ১ হাজার ১৮৫ জন ও পাকিস্তানে ১ হাজার ১৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।