লাইফস্টাইল ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

যদি ভেবে থাকেন কেবল সেদ্ধ খাবার খেলেই ওজন কমবে, তবে আপনার সেই ধারণা ভুল। ওজন কমানোর ডায়েট সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর উভয়ই হতে পারে, সেজন্য আপনাকে সঠিক খাবারটি বেছে নিতে হবে। ওজন কমাতে সাহায্য করে এমন অনেক খাবারই রয়েছে যা একইসঙ্গে পুষ্টিকর ও সুস্বাদু।

আপনি যদি ডায়েটে এমনকিছু রাখতে চান যা পুষ্টি ও স্বাদের পাশাপাশি ওজন কমাতেও সাহায্য করবে, তবে চিনাবাদাম হতে পারে সেরা পছন্দ। এটি প্রোটিন, ফ্যাট, ফাইবার এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর পুষ্টি সমৃদ্ধ। চিনা বাদাম অনেকরকম খাবার তৈরিতে ব্যবহার করা যায়। এটি আপনি মিষ্টি, কেক, মিষ্টান্ন এবং স্ন্যাকসে যোগ করতে পারেন।

চিনাবাদাম এবং ওজন হ্রাস চিনাবাদামে উচ্চ ফাইবার সামগ্রী থাকে, যা দীর্ঘ সময়ের জন্য আপনার পেট ভরিয়ে রাখে। অস্বাস্থ্যকর খাবার কিংবা বেশি খাওয়া এড়াতে নিয়মিত খেতে পারেন চিনা বাদাম। এগুলো সহজেই অন্ত্রের গতিবিধিতে সহায়তা করে। বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা যায় যে, প্রতিদিন পরিমিত চিনাবাদাম খেলে তা ওজন কমাতে এবং নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করে।

দ্য জার্নাল অফ নিউট্রিশনে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ আপনাকে ক্যালোরি পোড়াতেও সহায়তা করতে পারে। এটি সত্য যে চিনাবাদামে প্রচুর ক্যালোরি থাকে তবে আপনি তার সবটাই শোষণ করতে পারবেন না।

আমাদের দাঁত চিনাবাদাম পুরোপুরি ভাঙতে পারে না। আমরা এটি চিবিয়ে ছোট ছোট টুকরো করেই খেয়ে ফেলি। যা হজমের জন্য প্রয়োজনীয়। এ কারণে আমাদের দেহ কম ক্যালোরি শোষণ করে এবং বাকিগুলো বর্জ্যের মধ্য দিয়ে নির্গত হয়।

এ ছাড়া চিনাবাদামে কিছু স্বাস্থ্যকর ফ্যাট থাকে যা আমাদের হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এই ফ্যাট স্থূলত্ব, ইনফ্লামেশন এবং হার্ট সম্পর্কিত জটিলতার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

ওজন কমাতে চিনাবাদাম আপনি খেতেই পারেন, তবে দিনে কী পরিমাণ চিনাবাদাম খাচ্ছেন সে সম্পর্কে সতর্ক থাকুন। অতিরিক্ত চিনাবাদাম খেয়ে ফেলবেন না যেন!

সব সময় কাঁচা অথবা বালুর সাহায্যে ভাজা বাদাম খান। লবণ বা অন্য কোনো উপাদানযুক্ত চিনাবাদাম খাওয়া আপনার প্রতিদিনের ক্যালোরির পরিমাণ বাড়িয়ে তুলতে পারে।

ভালো ফলাফলের জন্য চেষ্টা করুন কাঁচা বাদাম খেতে। একমুঠো বাদাম সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে সকালে পান করতে পারেন। তাতেও উপকার মিলবে।