সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

ঘূর্ণিঝড় আম্ফান পরবর্তী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বিমান বাহিনী ৬টি পরিবহন বিমান এবং ২৯টি হেলিকপ্টার প্রস্তুত রেখেছে।  উপদ্রুত এলাকা দ্রুত পরিদর্শন, ক্ষয়ক্ষতি নিরুপন ও ত্রাণ সেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য এসব পরিবহন বিমান ও হেলিকপ্টার নিয়োজিত রয়েছে।

বুধবার (২০ মে) বিকেলে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বিমান বাহিনী জাতীয় যেকোনও ধরনের দুর্যোগ মোকাবেলায় দেশের প্রয়োজনে সহায়তা দিয়ে আসছে। সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ কর্তৃক ‘ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার’ এর আওতায় জাতীয় যেকোনও দুর্যোগ মোকাবিলায় বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে বিমান বাহিনী জরুরি বিমান পরিবহন এবং মেডিক্যাল ইভাকোয়েশন সহায়তা দিচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায়, করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ও ঘূর্ণিঝড় আম্ফান পরবর্তী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় দায়িত্ব পালন করবে বিমান বাহিনী।

বিমান বাহিনীর ঘাঁটি বাশার এ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সেল গঠনসহ বিমান বাহিনীর সব ঘাঁটিতে ২৪ ঘণ্টা প্রয়োজনীয় সহায়তার জন্য অপস্ রুম খোলা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়েছে, ক্ষতি নিরুপনে ফটো ও ভিডিও চিত্র ধারণ করার জন্য বিমান বাহিনীর এমআই-১৭ সিরিজ হেলিকপ্টারে ক্যামেরা লাগানো হয়েছে।  যার মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার প্রকৃত চিত্র ফুটে উঠবে এবং আম্ফান পরবর্তী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করা যায়।

দ্রুত উদ্ধার, ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তাসহ যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়, বেসামরিক প্রশাসন, পিডব্লিউডি ও স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তার জন্য বিমান বাহিনী তার জনবল ও সম্পদসহ সর্বদা প্রস্তুত আছে।