সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

করোনাভাইরাসের কারণে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ইতোমধ্যে স্থগিত হয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা। বন্ধ সব কোচিং সেন্টারও।

এ অবস্থায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অনলাইনে ক্লাস কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। এবং স্ব স্ব কোর্সের শিক্ষকদের সঙ্গে ডিজিটাল সংযোগের মাধ্যমে তাদের অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিচ্ছেন বলে জানা গেছে। এক্ষেত্রে সমন্বয় করছেন স্ব স্ব বর্ষের ক্লাস রিপ্রেজেন্টিটিভ (সিআর)। সর্বোপরি শিক্ষার্থীদের যাতে কোনোভাবেই সেশন জটে পড়তে না হয় সে ব্যাপারে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা।

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘করোনার পরিস্থিতিতে সরকার সারা দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে। আমরাও আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রেখেছি। তবে এক্ষেত্রে স্ব স্ব ক্লাসের সিআর তার কোর্সের শিক্ষকদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখবে। যাতে কাউকে সেশনজটে পড়তে না হয় সে ব্যাপারে আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা রয়েছে।’

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সোনারগাঁও ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার এস এম নুরুল হুদা বলেন, ‘আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। শিক্ষার্থীরা সরাসরি ক্লাসে না এসে উক্ত সময়ে অনলাইনে স্ব স্ব ক্লাসের কুইজ, ক্লাস টেস্ট, অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে পারবে। শিক্ষার্থীরা যাতে সেশনজটে না পড়ে সে ব্যাপারে আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা রয়েছে।’

এদিকে মাধ্যমিক পর্যায়েও শিক্ষার্থীরা যাতে পড়াশোনায় গ্যাপে না পড়ে সেটি চিন্তা করে ইতোমধ্যে সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ৬ষ্ট থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস সম্প্রচারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে এর পরীক্ষামূলক সম্প্রচারের কথা রয়েছে।

এ বিষয়ে মাউশি’র মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ গোলাম ফারুক বলেন, ‘প্রতিদিন সাতটি করে সপ্তাহে মোট ৩৫টি ক্লাস প্রচার করা হবে। শিক্ষার্থীরা বাসায় বসেই টেলিভিশনে নিজ নিজ বিষয়ের ওপর অভিজ্ঞ শিক্ষকদের কাছ থেকে পাঠ লাভ করতে পারবে।’

তিনি বলেন, ‘যতদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ততদিনই টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হবে। দেশের সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষকমণ্ডলীর রেকর্ডকৃত পাঠদান কার্যক্রমই নিয়মিত সম্প্রচার করা হবে। এক্ষেত্রে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করবে।’