শিরোনাম:

করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে ঢাকার ১৭ থানা

‘পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত দূরপাল্লার পরিবহন বন্ধ থাকবে’

লকডাউনে বৃহত্তর স্বার্থে ঘরে থাকার আহ্বান কাদেরের

মিতা হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

না.গঞ্জে সহিংসতাকারীদের ধরতে পুলিশের বিশেষ কৌশল!

লোহাগাড়ায় প্রতিবন্ধী নাতিকে নিয়ে বিপাকে বৃদ্ধ দাদা-দাদী

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত : মার্চ ২, ২০২১

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

লোহাগাড়ায় চার বছরের এক প্রতিবন্ধী শিশুকে নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছেন দাদা- দাদী।  জন্মের পর থেকে মা মরে যাওয়ার পর প্রতিবন্ধী শিশুটিকে লালন-পালন করেছেন দাদা-দাদী।

গতকাল (১ মার্চ) সোমবার দুপুরে লোহাগাড়া উপজেলা সমাজ সেবা অফিসে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড করতে আসলে প্রতিবেদকের সাথে কথা হয় শিশুটির দাদা ননাই নাথ ও দাদী শেফালী  নাথের সাথে।

প্রতিবন্ধী শিশুটির নাম দুর্জয় নাথ । তার বয়স চার বছর। সে শারীরিক, বাক ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী। উপজেলার কলাউজান ইউনিয়নের আদারচর  গ্রামের বিধান নাথের ছেলে। দুর্জয়ের জন্মের পর থেকে  মা রচনা মারা  যায়।

শিশুটির দাদা ননাই নাথ  বলেন, জন্মের পর থেকে শিশুটি আমরা লালন-পালন করতেছি।  তার মায়ের মৃত্যুর পর তার বাবা ৮ মাস পর বিয়ে করে৷ বিয়ের পর থেকে তার বাবা পেশাগত কারনে বউকে নিয়ে  চন্দনাইশের ধোপাছড়ি এলাকায় থাকেন। সে পেশায় পল্লী চিকিৎসক।

বিয়ের পর শিশুর খরচ বাবদ মাসে দুই/তিন হাজার টাকা দেয়। কিন্তু এসব টাকায় কিছুই হয়না। তাই বাধ্য হয়ে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড  করতে এলাম। জন্ম নিবন্ধনের সনদ না থাকায় প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডও হচ্ছে না। তাই  বাড়িতে ফিরে যাচ্ছি।

দাদি শেফালী নাথ  বলেন , দুর্জয় একা বসে থাকতে পারে না। বিছানায় শোবার সময়ও তাকে ধরে রাখতে হয়। তা না হলে বিছানা থেকে সে পড়ে যায়।

লোহাগাড়া উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন বলেন, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় আনার জন্য সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী তার নাম তালিকাভুক্তির উদ্যোগ নেওয়া হবে।

জরিপভূক্ত হওয়ার পর ভাতার আবেদন পেলে প্রতিবন্ধী শিশুটির জন্য  প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেওয়ার জন্য তিনি সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন।

পূর্ববর্তী সংবাদ পরবর্তী সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ
  • সর্বাধিক পঠিত