শিরোনাম:

চীনকে ঠেকাতে সাড়ে ৩ লাখ কোটি ডলার বিনিয়োগ করছে ইইউ

পছন্দের প্রার্থীকে ভোট না দেয়ায় পুত্রবধূর চোখে টিনের খোঁচা!

ওমিক্রনের সংক্রমণ রোধে ১ ডিসেম্বর থেকে ভারতে কঠোর নির্দেশনা কার্যকর

১৮ ডিসেম্বর উৎসবমুখর বিজয় শোভাযাত্রা

স্কুল কমিটি নিয়ে জগন্নাথপুরে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ২৫

অক্সিজেনের অভাবে শিশু মৃত্যুর অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৪, ২০২০

শেয়ার করুন

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ

জেলা আধুনিক সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় অক্সিজেনের অভাবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় রোগীর স্বজনদের সঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দুর্ব্যবহার করে। গতকাল রোববার সকালে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। ১০ মাস বয়সী ওই মৃত শিশু ফালাক শহরের আশ্রমপাড়া মহল্লার ফয়সাল মাহমুদের মেয়ে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ১০ মাসের শিশু ফালাককে ১২ ডিসেম্বর রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে শ্বাসজনিত সমস্যা নিয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর ১৩ ডিসেম্বর সকাল ৮টায় শিশুটির মৃত্যু হয়।

শিশুর বাবা মোহাম্মদ ফয়সাল জানান, জন্মের পর থেকেই আমার শিশুটি হার্ডের সমস্যায় ভুগছিল। গত ছয় মাস আগে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) হার্ডের অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল। পরে কিছুটা সুস্থ হলে তাকে ঠাকুরগাঁওয়ে নিয়ে আসা হয়। গত শনিবার রাতে অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হয় তাকে। সেখানে ডাক্তারের পরামর্শে অক্সিজেন দেওয়া হয়। সে অক্সিজেন সঠিকভাবে পাচ্ছে না সন্দেহ হলে নার্স ও ওয়ার্ড বয়কে জানাই। তারা একে একে ৫টি সিলিন্ডার পরিবর্তন করার পরেও আমার শিশু অক্সিজেন সঠিকভাবে পায়নি। ফলে তার মৃত্যু হয়েছে।

স্বজনদের অভিযোগ, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। অক্সিজেন আনতে যাওয়ার কথা বলে এক ঘণ্টা পরও কর্তৃপক্ষ অক্সিজেন দেয়নি। উল্টো তারা আমাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছে।

ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিরুল আজিজ চপল জানান, শিশুটি রাতে অসুস্থ হয়ে পড়লে তারা তাকে বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে অবস্থা বেগতিক দেখে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন এবং তার আগে অক্সিজেন লাগানোর পরামর্শ দেন। তার পরামর্শেই শিশুটিকে অক্সিজেন দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে শিশুটির বাবার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, আমাদের এখানে স্বয়ংক্রিয় অক্সিজেন কন্সেনট্রেটর মেশিন রয়েছে। যেটি নিজেই অক্সিজেন তৈরি করতে পারে। এছাড়াও শিশুটির অবস্থা বেশ খারাপ ছিােবলেই তার পাশে একাধিক সিলিন্ডার রাখা হয়েছিল।

হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. শাহজাহান বলেন, শিশুটির হার্টের সমস্যা ছিল। গত শনিবার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে শ্বাসজনিত সমস্যা নিয়ে ভর্তি হয়। সকালে শিশুর অক্সিজেন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। ওয়ার্ড বয় অক্সিজেন আনতে গিয়েছিল। যখন অক্সিজেন নিয়ে আসা হয় ততক্ষণে বাচ্চাটি মারা যায়।

পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত