দণ্ডপ্রাপ্ত নেতাদের পরিবারের সঙ্গে সংহতি জানাল বার্সেলোনা

ক্রীড়া ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

স্বাধীনতার জন্য আন্দোলন থেমে নেই কাতালুনিয়ায়। তার জন্য প্রদেশটির জনগণকে সাজাও ভোগ করতে হচ্ছে। এবার স্পেনের আদালত কাতালানের স্বাধীনতার জন্য আন্দোলনকারী ৯ জন ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ নেতাকে কারাদণ্ড দিয়েছে। যার কারণে সোমবার (১৪ অক্টোবর) কাতালান প্রদেশে সব ধরণের ফুটবল ম্যাচ স্থগিত করেছে কাতালান ফুটবল ফেডারেশন।

স্বায়ত্ত্বশাসিত অঞ্চলটিতে ২০১৭ সালে স্বাধীনতার জন্য গণভোটে ভূমিকা রাখায় দেশদ্রোহিতার অভিযোগে স্পেনের সুপ্রিম কোর্ট এই নেতাদের দণ্ডিত করেছে।

কাতালান ফেডারেশন থেকে জানানো হয়, সাজাপ্রাপ্ত নেতা ও তাদের পরিবারের সঙ্গে সংহতি দেখানোর নিমিত্তে ফুটবল ম্যাচ স্থগিত করা হয়েছে।

তবে তাতে লা লিগা ও স্প্যানিশ জাতীয় দল অন্তর্ভূক্ত নয়।

কাতালুনিয়া স্পেনের আধা-স্বায়ত্ত্বশাসিত অঞ্চল। যার অবস্থান উত্তর-পূর্ব স্পেনে। স্পেন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে স্বাধীন রাষ্ট্র গড়ার জন্য প্রদেশটি ২০১৭ সালের ১ অক্টোবর গণভোটের আয়োজন করে। তবে এই গণভোট অবৈধ বলে ঘোষণা করে স্পেনের সাংবিধানিক আদালত। কাতালুনিয়ার প্রায় ৯০ শতাংশ জনগণ স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দিয়েছিল। কিন্তু সেই ভোট বাতিল করে দেয় স্পেন সরকার।

দেশটির সরকার জানায়, কাতালুনিয়ার স্বাধীনতা আন্দোলন তাদের একতাবদ্ধ রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতিকর এক আক্রমণ। যার কারণে প্রদেশটির গণভোটের পক্ষের আন্দোলনকারী নেতাদের ধর-পাকড় শুরু হয়। অবশেষে চার মাস শুনানির পর স্পেনের আদালত তাদের দেশদ্রোহিতার অভিযোগে ৯ থেকে ১৩ মাস কারাদণ্ডের আদেশ দেয়।

তবে স্পেন সরকারের এই নীতিতে সমালোচনা করেছে কাতালান ক্লাব এফসি বার্সেলোনা। ক্লাবটি জানায়, ‘কারাদণ্ড সমাধান নয়’ এবং দ্বন্দ্ব অবশ্যই রাজনৈতিক উপায়ে সমাধান হওয়া উচিৎ।

এছাড়া বার্সেলোনা সাজাপ্রাপ্ত নেতা ও তাদের পরিবারের সঙ্গে সংহতি জানিয়েছে। তারা বলে, ‘এফসি বার্সেলোনা পূর্ণভাবে সমর্থন ও সংহতি জানায় স্বাধীনতার জন্য যারা আন্দোলন করেছে তাদের পরিবারের জন্য।’

২০১৮ সালের মার্চে বর্তমান ম্যানচেস্টার সিটি কোচ পেপ গার্দিওলা কাতালুনিয়ার স্বাধীনতার পক্ষে হাতে হলুদ রিবন (কাতালুনিয়ার স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক) পরায় ফুটবল ফেডারেশন তাকে জরিমানা করে।