আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সোনারদেশ২৪:

করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় যক্ষার টিকা কাজ করবে কিনা জানতে প্রায় চার হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর ওপর পরীক্ষা চালাতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। বৃহস্পতিবার রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে।

যক্ষার প্রতিষেধক হিসেবে প্রতি বছর ১০ লাখেরও বেশি শিশুকে বিসিজি টিকা দেওয়া হবে। তবে গবেষকরা জানিয়েছেন, এই টিকা নতুন করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) বিরুদ্ধেও লড়তে পারবে বলে তারা ধারণা করছেন। কারণ মানবদেহে ব্যাপকভাবে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টি করতে পারে এই টিকা। অবশ্য টিকা দেহে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করতে পারলেও এটি রোগ সারাইয়ের ওষুধ নয়।

অস্ট্রেলিয়ার মারডক চিলড্রেনস রিসার্চ ইনিস্টিটিউট (এমসিআরআই) জানিয়েছে, পরীক্ষামূলকভাবে অস্ট্রেলিয়ার হাসপাতালগুলোর চার হাজার কর্মী এই টিকাদান কর্মসূচিতে অংশ নেবেন। ধারণা করা হচ্ছে আগামী ছয় মাসের মধ্যে এর ফলাফল হাতে পাওয়া যাবে।

এমসিআরআইয়ের সংক্রামক রোগ বিষয়ক গ্রুপের প্রধান নাইজেল কারতিস বলেন, ‘অত্যন্ত পুরোনো একটি টিকাকে নতুন একটি উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হচ্ছে। এটা মহৎ ও উত্তেজনাপূর্ণ এবং সত্যিকারার্থে প্রথমবারের মতো এভাবে টিকাটি প্রথম ব্যবহার করা হচ্ছে।’

বিশ্বে গত তিন মাসে চার লাখেরও বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আর মারা গেছেন ২১ হাজারেরও বেশি। বিশ্বের ২০টিরও বেশি বড় বড় ওষুধ কোম্পানি ও সংস্থা করোনাভাইরাসের টিকা উদ্ভাবনে কাজ করে যাচ্ছে। তবে দ্রুত কাজ করা হলেও সব পরীক্ষা শেষ করে টিকাটির বাজারে আসতে সময়  লাগবে অন্তত এক বছর।